মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১১:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দেবিদ্বারে কেঁদে কেঁদে ঈগল প্রতিকে ভোট চাইলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম নৌকায় ভোট দিয়েই মেঘনার সঠিক উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব… সেলিমা আহমাদ ঈগলে ভোট দিলে গোমতীর মাটি লুট জিবির নামে চাঁদাবাজি বন্ধ হবে: আবুল কালাম আজাদ দেবিদ্বারে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা কুমিল্লায় পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ ব্রাজিলে ঘূর্ণিঝড়ে নিহত ২২ সিলেটে মসজিদের পুকুর থেকে ইমামের মরদেহ উদ্ধার সিলেটে সিএনজি স্টেশনের জেনারেটর বিস্ফোরণে দগ্ধ ৭ বার্মিংহাম সিটি কাউন্সিলের নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা মারা গেলেন লন্ডনের বাংলাদেশ হাইক‌মিশনের মিনিস্টার মুক্তি

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে ২০ টাকার ইনজেকশন বিল ৬ হাজার টাকা

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৪ মে, ২০২২
  • ৪৪

 

 

নেছারাবাদ (পিরোজপুর) প্রতিনিধি

সাংবাদিক  মোঃ নাফিস ইকবাল,

 

পিরোজপুরে স্বরূপকাঠি উপজেলার বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীর কাছ থেকে ২০ টাকার ইনজেকশনে ৬ হাজার টাকার বিল করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়াও একাধিক রোগীর অভিভাবকদের অভিযোগ ক্লিনিক গুলোতে নার্স ব্রাদার দ্বারা নানা ধরনের হয়রানির শিকার হতে হয়। এ ব্যাপারে সরকারি ভাবে কোনো তদারকির ব্যবস্থা না থাকায় রোগী ও তার আত্মীয় স্বজন প্রতিবাদ করতে পারছেন না।

সন্ধা নদীর পূর্ব পাড়ে ২টি ও পশ্চিম পাড়ে ৪টি প্রাইভেট ক্লিনিকের ডাক্তারগণ বাধ্য করছেন রোগী ও তার স্বজনকে অতিরিক্ত টাকা দিতে। বিভিন্ন সরকারি হসপিটালের ডাক্তারগণ সপ্তাহের প্রায় প্রতিদিনই পালা করে এই ৬টি ক্লিনিকে প্রাইভেট প্রাকটিস করেন বলে জানান ক্লিনিক ব্যবসায়ী অসিম।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ল্যাব মালিক বলেন, শুধু ক্লিনিকেই নয় কয়েকজন ডাক্তার ল্যাবেও প্রাকটিস করেন।

অর্থপেডিক্সের যে সকল ডাক্তারগণের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ তাদের মধ্য থেকে ডা. এম এ করিম মামুন বলেন, শুধু ইনজেকশনে ৬ হাজার টাকা নেই কথাটা সম্পূর্ণ সঠিক নয়। ইনজেকশন পুষ করা ও ক্লিনিক বিল সহ এ টাকায় ধার্য করি।

তবে একাধিক ক্লিনিক পরিচালক বলেন, ইনজেকশন পুষ করার জন্য ক্লিনিক কোনো চার্জ নেয়না। ডাক্তারগণ রোগীর টেস্ট রেফার করলে সেটার চার্জই রাখা হয় রোগীর কাছ থেকে। এর বাহিরে ক্লিনিক কিছুই পায়না।

অবসরপ্রাপ্ত টি এইচও বর্তমানে সেবা ক্লিনিকে প্রাক্টিসরত ডা. তানভির আহম্মেদ জানান, লোকাল এনেসথিসিয়ার জন্য লিডোকেইন গ্রুপের অসুধ ব্যবহার করা হয়।

স্বরূপকাঠির বিভিন্ন অষুধের দোকান থেকে জানা যায় জেসোকেইন ২% ভায়েল (৫০ সিসি) ৬০/৬৫ টাকা বিক্রি হয়। একটি ভায়েল থেকে ৫/৭ জনকে চিকিৎসা করা যায়। তবে রোগীর একাধিক কাটাছেরা থাকলেও সে ক্ষেত্রে একজন রোগীকে সর্বোচ্চ ১৫/২০ টাকার ওষুধ পুষ করা হয়। আঙ্গুলের হাড়ে সমস্যা দেখা দেয়া সোহাগদল গ্রামের রোগী জসিমের। তার এক আত্মীয় জানান, চিকিৎসা দেয়ার পরে ডা. এম এ করিম মামুন বিল করেন ৬ হাজার টাকা।

একই অভিযোগ করেন শহিদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজের অবসরপ্রাপ্ত সহকারি অধ্যাপক মো. মহসিন মিয়া। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ডাক্তাররা এই যে গলাকাটা বিল নেয় এর কি কোনো প্রতিকার নেই স্বরূপকাঠিতে!

স্বরূপকাঠি উপজেলা সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিচালক ডাক্তার ফিরোজ কিবরিয়ার জানান, একজন চিকিৎসক লোকাল ইনজেকশনের জন্য ৬ হাজার টাকা বিল নেয় এটা কোনোভাবেই মানা যায়না। আইনে এদের বিরুদ্ধে সঠিক ব্যবস্থা নেয়ার কোনো বিধান না থাকায় এরা যাচ্ছে তাই করছে। আমি পিরোজপুর জেলা সিভিল সার্জনের কাছে লিখিত দিয়েছি। তার নির্দেশনা আসলে সে অনুসারে ভবিষ্যতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved ©2023 -ওল্ডহাম বাংলা নিউজ |

সম্পাদক ও প্রকাশক: