সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০১:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দেবিদ্বারে কেঁদে কেঁদে ঈগল প্রতিকে ভোট চাইলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম নৌকায় ভোট দিয়েই মেঘনার সঠিক উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব… সেলিমা আহমাদ ঈগলে ভোট দিলে গোমতীর মাটি লুট জিবির নামে চাঁদাবাজি বন্ধ হবে: আবুল কালাম আজাদ দেবিদ্বারে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা কুমিল্লায় পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ ব্রাজিলে ঘূর্ণিঝড়ে নিহত ২২ সিলেটে মসজিদের পুকুর থেকে ইমামের মরদেহ উদ্ধার সিলেটে সিএনজি স্টেশনের জেনারেটর বিস্ফোরণে দগ্ধ ৭ বার্মিংহাম সিটি কাউন্সিলের নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা মারা গেলেন লন্ডনের বাংলাদেশ হাইক‌মিশনের মিনিস্টার মুক্তি

ভৈরবে ডা: কে এন জাহাঙ্গীরের ভুল চিকিৎসায় নবজাতক শিশুকে হত্যার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৫ জুন, ২০২২
  • ৫৭

 

মোঃ নাঈম মিয়া,

ভৈরব(কিশোরগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ

 

কিশোগঞ্জের ভৈরবে ডঃ কে.এন.জাহাঙ্গীরের ভুল চিকিৎসায় নবজাতক শিশুকে হত্যার অভিযোগে

ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন।

 

(১৫জুন) বুধবার সকালে শহিদ আইভি রহমান রোড প্রধান পার্টি সেন্টারে, ভৈরবে অবস্থিত মেডিল্যাব মেডিকেল এন্ড ডায়াবেটিস সেন্টারে কমব্যরত চিকিৎসক ডঃ কে.এন.জাহাঙ্গীরের অবহেলায় ও ভুল চিকিৎসায় নবজাতক শিশুকে হত্যার অভিযোগে ভুক্তভোগী এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

 

সংবাদ সম্মেলনে ডাঃ কে এন জাহাঙ্গীর বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে অভিযুক্ত ডাক্তারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য এবং অবহেলায় ও ভুল চিকিৎসায় নবজাতক শিশু কে হত্যার অভিযোগে বিচার দাবী করেন পিতা হাজী সোহরাব হোসেন বাদল ও তার পরিবার বর্গ।

 

হাজী সোহরাব হোসেন বাদল চন্ডিবের এলাকার মধ্য পাড়া এলাকার মৃত আলী আকবর ছেলে।

 

উক্ত বিষয়ে হাজী সোহরাব হোসেন বাদল অভিযোগে উল্লেখ করে বলেন, গত ৮/০৬/২০২২ ইং রোজ বুধবার আমার স্ত্রী ২নং স্বাক্ষীকে ভৈরব মেডিল্যাব মেডিক্যাল এন্ড ডায়বেটিক সেন্টার প্রাঃ লিঃ এ ভর্তি করেন। ভর্তি করার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ কে এন জাহাঙ্গীর আমাকে বলে যে রোগীর অবস্থা আশংকাজনক দ্রুত আল্ট্রা করাতে হবে। আমি ডাঃ কে এন জাহাঙ্গীর এর কথা মতো আল্ট্রা করার পর সে আমাকে বলে যে বাচ্চার পজিশন ভালো না দ্রুত সিজার করা না হলে বাচ্চা ও মা কে বাঁচানো যাবে না। আমি বাচ্চা এবং মা কে বাঁচানোর জন্য সিজার করার অনুমতি দেই। পরবর্তীতে ৮/০৬/২০২২ইং তারিখে বিকাল ৩ টার সময় ওটিতে নিয়ে যায়। এবং অদক্ষ্য নার্সসহ আমার স্ত্রীকে সিজার করেন। পরবর্তীতে আমি নার্সের সাথে আলোচনা করে জানতে পারি অপারেশন থিয়েটার এ থাকা কর্তব্যরত চিকিৎসকের সাথে বহিরাগত বিদেশ ফেরত সাইফ আহমেদ সিজার করাতে ডাক্তারের সহকারী হিসেবে কাজ করেছে। সিজার করার পর ডাঃ কে এন জাহাঙ্গীর আমাকে বলে যে শিশুর অবস্থা আশংকাজনক আপনি দ্রুত রোগীকে ভাগলপুর জহিরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। তিনি আবার ১০ মিনিট পরে আমাকে বলেন যে ডাক্তার দিদারুল ইসলাম এর কাছে যাওয়ার জন্য। আমি তার কথা মতো শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দিদারুল ইসলাম এর স্বরনাপর্ণ হলে তিনি আমার নবজাতক বাচ্চা কে প্রয়োজনীয় সেলাইন দেন এবং তিনি বলেন যে এটা সর্বক্ষণ চালিযে যাওয়ার জন্য এবং তার অনুমতি ছাড়া যেন সেলাইন বন্ধ না করা হয়। কিন্তু গত ১০/০৬/২০২২ইং তারিখ রোজ শুক্রবার সময় আনুমানিক ১টায় আসামি শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দিদারুল ইসলাম এর অনুমতি ছাড়া হীন উদ্দেশ্যে সেলাইনটি বন্ধ করে ফেলেন। সেলাইন খোলার পর থেকে আমার নবজাতক বাচ্চার শ্বাস কষ্ট ও কান্না শুরু করে। বার বার ডাঃ কে এন জাহাঙ্গীর কে বলার পরও তিনি কোনো পদক্ষেপ না নিয়ে অবহেলা করে কাল ক্ষেপন করতে থাকে। শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দিদারুল ইসলামের পরামর্শ ব্যাতিত সেলাইন বন্ধ করা এবং কর্তব্যরত ডাক্তারের অবহেলার কারণে আমার নবজাতক বাচ্চা অসুস্থ হয়ে যায়।

 

এর ফল প্রস্তুতিতে চিকিৎসার অবহেলার কারণে ঘটনার তারিখ ও সময়ে গত ১১/০৬/২০২২ ইং তারিখে আমার নবজাতক বাচ্চা কে সঠিক চিকিৎসা না দিয়ে ইচ্ছা পূর্বক হত্যা করেছে। আমি ঘটনার যাবতীয় বিবরণ ও এলাকার গণমাণ্য ব্যাক্তিদের সাথে আলোচনা করে ও দাফন কাজে শেষ করে গত (১৪) জুন মঙ্গলবার ডাঃ কে এন জাহাহাঙ্গীর কে আসামী করে ভৈরব থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved ©2023 -ওল্ডহাম বাংলা নিউজ |

সম্পাদক ও প্রকাশক: