সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০২:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দেবিদ্বারে কেঁদে কেঁদে ঈগল প্রতিকে ভোট চাইলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম নৌকায় ভোট দিয়েই মেঘনার সঠিক উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব… সেলিমা আহমাদ ঈগলে ভোট দিলে গোমতীর মাটি লুট জিবির নামে চাঁদাবাজি বন্ধ হবে: আবুল কালাম আজাদ দেবিদ্বারে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা কুমিল্লায় পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ ব্রাজিলে ঘূর্ণিঝড়ে নিহত ২২ সিলেটে মসজিদের পুকুর থেকে ইমামের মরদেহ উদ্ধার সিলেটে সিএনজি স্টেশনের জেনারেটর বিস্ফোরণে দগ্ধ ৭ বার্মিংহাম সিটি কাউন্সিলের নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা মারা গেলেন লন্ডনের বাংলাদেশ হাইক‌মিশনের মিনিস্টার মুক্তি

মুসকান হত্যা: নেপথ্যে টাকা ধার নাকি পরকীয়া

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৩ মে, ২০২২
  • ৩১

 

বংশাল থানার প্রতি‌নি‌ধি

সাংবা‌দিক নজরুল ইসলাম

 

জাহাঙ্গীর হোসেন ত্রিশ বছর বয়সেই তিনবার বিয়ের পিঁড়িতে বসেন। এক স্ত্রী চলে গেলেও দুই জনের সাথে বসবাস করেন। একজনকে কাছে রাখেন, অন্যজন গ্রামে। গার্মেন্টসে চাকরির সুবাধে অনেক মেয়ের সাথে তার কথাবার্তা হয়। আর এভাবেই সহকর্মী শাহিনা আক্তার ওরফে মুসকানের সাথে তার সখ্যতা গড়ে ওঠে। স্ত্রীর অসুস্থতার কথা বলে মুসকানের কাছ থেকে টাকাও ধার নেয়। তবে মুসকানের উপরও তার লোলুপ দৃষ্টি পড়ে। আর এতেই ঘটে নির্মম এক ঘটনা। ৫ এপ্রিল কৌশলে মুসকানকে নারায়ণগঞ্জের বন্দর এলাকা থেকে ফোন করে যাত্রাবাড়ির মাতুয়াইল এলাকার একটি বাসায় নিয়ে আসে। বন্ধ ঘরে মুসকানের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে জাহাঙ্গীর। ঘটনার এক পর্যায়ে মুসকান জাহাঙ্গীরের পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলে। সেই অবস্থায় ঘাতক জাহাঙ্গীর মুসকানকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে। এঘটনায় ওই দিনই মুসকানের স্বামী রুহুল আমিন জাহাঙ্গীরকে আসামি করে যাত্রাবাড়ি থানায় মামলা রুজু হয়। মামলাটি তদন্ত করছে যাত্রাবাড়ি থানা পুলিশ। পুলিশের ধারণা, পরকীয়ার জেরে হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। তবে মুসকানের স্বামী দাবি করছেন, টাকা না দিতে জাহাঙ্গীর মুসকানকে হত্যা করেছে।জাহাঙ্গীর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। পুলিশ বলছে, এ অবস্থায় আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা যায়নি। চিকিৎসা শেষে সুস্থ হলে ঘটনার আসল রহস্য জানা যাবে।

 

ঘটনার পরদিনই চিকিৎসাধীন জাহাঙ্গীর হোসেনকে হাজতী পরোয়ানা জারির আবেদন করে পুলিশ। ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান আসামিকে পুলিশ পাহারায় সুচিকিৎসা গ্রহণে তদন্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। চিকিৎসা শেষে সুস্থতা সাপেক্ষে হাসপাতালের ছাড়পত্রসহ তাকে আদালতে হাজির করে হাজতী পরোয়ানা জারি করেন। আগামি ১৬ জুন মামলাটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ধার্য রয়েছে।মামলা সম্পর্কে জানতে চাইলে মুসকানের স্বামী রুহুল আমিন বলেন,‘আমার স্ত্রী মুসকান এবং আসামি জাহাঙ্গীর হোসেন একই গার্মেন্টসে চাকরি করতো। জাহাঙ্গীরের তিন বিয়ে। এক স্ত্রীর মেরুদন্ডে সমস্যা দেখা দেয়। ৪/৫ মাস আগে সে আমার স্ত্রীর কাছে টাকা চায়। বলে বেতন বোনাস পেলে দিয়ে দিবে। আমার স্ত্রী সরল বিশ্বাসে তাকে ৩৫ হাজার টাকা দেয়। কিন্তু সে আর টাকা ফেরত দেয় না। আমি মদনপুর অলিম্পিক কোম্পানিতে চাকরি করি। ৫ এপ্রিল আমার ডিউটি শুরু হয়। সকালে আমি বাসা থেকে বের হয়ে যাই।’তিনি বলেন, ‘ঘটনার পর শুনেছি মাতুয়াইলের ওই বাসা থেকে মুসকানকে একজন ফোন দেয়। মুসকান আমার আম্মাকে বলে পরিচিত একজনের বাসায় যাচ্ছে। সেখানে জাহাঙ্গীর যে আছে তা সে জানতো না। ভিতরে ঢুকলে ওই বাসার একজন বাইরে দিয়ে দরজা লক করে দেয়। শুনেছি ওই লোকের নাম মামুন।’

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved ©2023 -ওল্ডহাম বাংলা নিউজ |

সম্পাদক ও প্রকাশক: