মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দেবিদ্বারে কেঁদে কেঁদে ঈগল প্রতিকে ভোট চাইলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম নৌকায় ভোট দিয়েই মেঘনার সঠিক উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব… সেলিমা আহমাদ ঈগলে ভোট দিলে গোমতীর মাটি লুট জিবির নামে চাঁদাবাজি বন্ধ হবে: আবুল কালাম আজাদ দেবিদ্বারে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা কুমিল্লায় পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ ব্রাজিলে ঘূর্ণিঝড়ে নিহত ২২ সিলেটে মসজিদের পুকুর থেকে ইমামের মরদেহ উদ্ধার সিলেটে সিএনজি স্টেশনের জেনারেটর বিস্ফোরণে দগ্ধ ৭ বার্মিংহাম সিটি কাউন্সিলের নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা মারা গেলেন লন্ডনের বাংলাদেশ হাইক‌মিশনের মিনিস্টার মুক্তি

মেডিকেলে চান্স পেয়ে ও মেয়ের ভর্তি নিয়ে দুশ্চিন্তা দিন মজুর বাবা

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২২
  • ৫৪

 

নেছারাবাদ (পিরোজপুর) প্রতিনিধি মোঃ নাফিস ইকবাল পিরোজপুরের নেছারাবাদ(স্বরুপকাঠি) উপজেলার ০৫ নং জলাবাড়ি ইউনিয়ন এর ২ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ কামারকাঠি গ্রামের দিনমজুর বাবুল মোল্লার মেয়ে সাবনূর মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। সাবনূরের উত্তীর্ণের খবরে দিনমজুর ও এ্যাজমা রোগে আক্রান্ত বাবা বাবুল ও মা সাবিনা বেগমসহ খুশিতে আত্মহারা তাঁর শিক্ষকেরাও।

সাবনূর সদ্য প্রকাশিত মেডিকেল কলেজ ভর্তি পরীক্ষায় জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন সাবনূর। অভাব অনটনের সংসারে উপজেলা থেকে সাবনূরের একার এই অসামন্য কৃতিত্বে তাঁর বাবা-মায়ের চোখ আনন্দে ছলছল করছে। তবে দুশ্চিন্তায় বাবুল মোল্লার পরিবার। সাবনূরের ভর্তি, পড়াশুনার খরচ চালিয়ে যাওয়া কষ্টসাধ্য ব্যাপার বলে এ দুশ্চিন্তা তাঁদের। এলাকাবাসীর এক কথা, বরিশালের বানারিপাড়ার রিকশাচালক বাবার মেয়ে হারিসার মেডিকেলের পড়ার খরচের দায়িত্ব নিল বসুন্ধরা। সাবনূরকে চালাবে কে? তাঁদের দাবি, বাবুল মোল্লার মেয়ের পড়ার খরচ চালাতে কোনো বৃত্তবান লোক যদি এগিয়ে না আসে, তাহলে ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন সাবনূরের স্বপ্নই থেকে যাবে। সাবনূরের মা বাবা চোখে আনন্দ দেখা গেলেও ভেতরে ডুবে আছেন গভীর দুশ্চিন্তায়। এখন মেডিকেলের ভর্তির খরচ জোগাতে দিশেহারা বাবা বাবুল মোল্লা ও মা সাবিনা বেগম।

সাবনূরের বাবা বলেন, ‘আমার এক ছেলে, দুই মেয়ে। আমি একজন দিনমজুর। তার উপরে বছর পাচেক ধরে এ্যাজমা রোগে আক্রান্ত। আগের মতো কাজও করতে পারি না। আমার স্ত্রী একজন গৃহীনি। আমার একার আয়ে পরিবারের ভরন পোষনের কষ্ট হয়। তার উপর তিন ছেলে মেয়ের লেখা পড়ার খরচ চালাতে গিয়ে ধার দেনায় জর্জরিত। আগের মতো কাজ করতে পারিনা বিধায় মাঝেমধ্যে সাবনূরের মাও কাজ করে।’

 

তিনি জানান, সাবনূর ছোট থেকে স্কুলে ভালো ছিল। তাঁর শিক্ষকেরা তাঁকে নিয়ে গর্ব করতেন। পঞ্চম শ্রেণিতে কৃতিত্বের সঙ্গে রেজাল্ট করে এসএসসি পরীক্ষায় কামারকাঠি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে গোল্ডেন এ প্লাস অর্জন করে। সে সময়ে তাঁকে ভালো প্রাইভেটও দিতে পারিননি তিনি। বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কথায় তাঁদের সহযোগীতায় উপজেলার শহীদ স্মৃতি ডিগ্রী কলেজে বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি করান। কলেজের শিক্ষকদের তাঁদের অবস্থার কথা খুলে বললে তাঁরা তাঁর মেয়েকে সহযোগীতা করেন। প্রাথমিক থেকে শুরু করে কলেজ পর্যন্ত শিক্ষক ও সহপাঠীরা বিভিন্নভাবে সহযোগীতা করেছেন।

 

সাবনূরের মা কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান, এমন দিনও গেছে সংসারের অভাবের কারণে তাঁর মেয়ে না খেয়েও কলেজ করেছেন। এমনকি এখনও সেই অভাব তাঁদের সংসারে লেগেই আছে।

 

তিনি বলেন, ‘আমি সপ্তম শ্রেণিতে পড়াশুনাকালিন বাবা আমাকে বিবাহ দেয়। তখন আমার পড়া লেখার খুব ইচ্ছা ছিল। তা পারিনি। তাই সেই থেকে মনে মনে পন করি আমার ছেলে মেয়ে হলে, তাদের ইচ্ছানুযায়ি পড়াশুনার সুযোগ দিব। সংসারে অভাবের কারণে আমি মানুষের বাড়িতে মাঝে মাঝে কাজ করি। রাতভর ঘরে বসে পাটি ও হাত পাখা বুনন করি। অভাবের কারণে মেয়েকে কলেজে আসা যাওয়ার ভাড়াও দিতে পারিনি। মেয়ে আমার বাসা থেকে ৮ কিলোমিটার হেঁটে গিয়ে কলেজ করত। দুপুর হলে আবার পায়ে হেঁটে বাড়িতে আসত। ওর প্রাইমারি থেকে এ পর্যন্ত রেজাল্ট দেখে কলেজের মাহমুদ স্যার মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার কথা বলে। এতে তিনি আমাদের অনেক সহযোগীতা করেছেন। এখন মেয়ের ভর্তি ও পড়ার খরচ কিভাবে চালাব তা ভেবেই পাচ্ছি না।’

শিক্ষার্থী সাবনূর বলেন, ‘আমি প্রাথমিক শিক্ষা জীবন থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত আগাতে শিক্ষক সহপাঠিদের অনুপ্রেরণা ও সহযোগীতা পেয়েছি। মেডিকেলে চান্স পেয়ে এখন ভর্তির জন্য অনেকটা দুশ্চিন্তায় আছি। মা বাবা এ নিয়ে মন খারাপ করে আছে। যদি মেডিকেলে ভর্তি হতে পারি ডাক্তার হয়ে আমি আমার দিনমজুর বাবা ও মায়ের মুখ উজ্জ্বল করব। এ জন্য আমি আমার শুভাকাঙ্খি সকলের কাছে দোয়া চাচ্ছি।’

 

নেছারাবাদ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মোসারেফ হোসেন বলেন, ‘আমি তাঁদের আমার অফিসে আসতে বলেছি। ঘটনা শুনে সাবনূরের মেডিকেল ভর্তিতে যা খরচ হয় তা আমরা বহন করব

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved ©2023 -ওল্ডহাম বাংলা নিউজ |

সম্পাদক ও প্রকাশক: